,
সংবাদ শিরোনাম :
» « ঠাকুরগাঁওয়ে এবারও শ্রেস্ট ফাড়াবাড়ি দূর্গা মন্ডপ বলে মনে করছেন ভক্তরা» « জাতীয় ঐক্য গঠন করা হয়েছে দেশের গনতন্ত্রকে পুনরুদ্ধার করার জন্য -মির্জা ফখরুল» « বিশ্বকাপ ট্রফি এখন ঢাকায়» « নারীদেরকে অর্থনৈতিক কর্মকান্ডে যুক্ত হয়ে দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে- জেলা প্রশাসক ড. কে এম কামরুজ্জামান» « বালিয়াডাঙ্গীতে ভ্রাম্যমাণ থেরাপী সেবা ক্যাম্পের উদ্বোধন» « বাঁশগাড়া সরকারি প্রাইমারী স্কুলে অভিভাবক সদস্য নির্বাচন অনুষ্ঠীত» « সাংবাদিকদের সাথে রংপুর ডিআইজি’র মতবিনিময়» « ঠাকুরগাঁও বিএডিসি শ্রমিকদের বিক্ষোভ ও স্বারকলিপি» « মনিরকে ধরিয়ে দিতে পুরস্কার ঘোষণা» « ইতা‌লি‌তে শুরু হ‌চ্ছে দি রাইজিং স্টার

শাবিতে প্রভোস্টের এসি বিলাসিতা, নজর নেই হল সমস্যায়

আলোরকন্ঠ রিপোর্টঃ শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শাহপরান হলের প্রভোস্ট মো. শাহেদুল হোসেনের এসি বিলাসিতা নিয়ে ক্যাম্পাসের সর্বত্র ওঠেছে সমালোচনার ঝড়।

ঈদের বন্ধে হল প্রভোস্টের কক্ষে এসি লাগানো হয় বলে হল সূত্র জানা গেছে। নানা সমস্যায় জর্জরিত হলের ছাত্ররা দুর্ভোগে ধুঁকতে থাকার পরেও তিনি দেখিয়েছেন তার এই এসি বিলাসিতা। হলের স্যানিটেশন সমস্যা, ধীর গতির ইন্টারনেটের, খাবারের ডাইনিংয়ের অব্যবস্থাপনা ও অপরিষ্কার, টয়লেটের দরজায় সিটকিনি ভাঙা কিংবা নষ্ট, পর্যাপ্ত শাওয়ার ও লাইট না থাকায় দুর্ভোগে দিন কাটাতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের।
Bisk Club

এ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শাহপরান হলের শিক্ষার্থীরা ক্ষোভ প্রকাশ করেন। শাহপরান হলের শিক্ষার্থী নাসির উদ্দিন ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, হলে ওয়াইফাই সংযোগ এই আছে এই নাই। সকালে নেট কানেকশন পাওয়া গেলে বিকেলে নেই। বিকেলে পাওয়া গেলে আবার রাতে নেই। আবার ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগও দিতে দেয়না প্রশাসন। তাহলে শিক্ষার্থীরা কি ইন্টারনেট ব্যবহার করবে না?

সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ধীর গতির ইন্টারনেটের কারণে ভোগান্তিতে পড়েছেন আবাসিক হলের শিক্ষার্থীরা। হলগুলোর বেশির ভাগ কক্ষেই ওয়াইফাই পাওয়া যায় না। নেট স্পিড সর্বনিম্ন, অনেক সময় ব্রাউজই করা যায়না। ওয়াইফাই রাউটারের মাত্র কয়েক গজের মধ্যে থেকেই ইন্টারনেট ব্যবহার করতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। ওয়াইফাইয়ের কচ্ছপগতির কারণে ইন্টারনেট সংযোগ পাওয়া যায় না বলে অভিযোগ করেছেন অনেক শিক্ষার্থী। এমনকি মাঝেমধ্যেই বিনা কারণে ওয়াইফাই সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। গত কয়েকমাস ধরেই হলে এমন অবস্থা বিরাজ করলেও উন্নতির কোনো লক্ষণ নেই।

হলের আবাসিক শিক্ষার্থীরা জানান, নিয়মিত পরিষ্কার না করার ফলে টয়লেট নোংরা থাকে, কিছু বেসিনের আয়না নেই আর যেগুলো আছে সেগুলো নষ্ট হয়ে যাওয়ার কারণে মুখ দেখা যায় না।

এসব বিষয়ে শাহপরান হলের প্রভোস্ট মোহাম্মদ শাহেদুল হোসেন বলেন, ওয়াইফাই হল প্রশাসনের অধীনে না, আমি ডাটা সেন্টারে চিঠি দিয়েছি, তারা আমাকে জানিয়েছে দ্রুত এটা নিয়ে কাজ করা হবে।

নানা সমস্যা থাকা সত্বেও অফিস কক্ষে এসি ব্যবহার করা বিলাসিতা কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, হ্যাঁ আমার রুমে এসি স্থাপন করা হয়েছে তবে খুব তাড়াতাড়ি শিক্ষার্থীদের রিডিং রুমেও এসি স্থাপন করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com