,
সংবাদ শিরোনাম :

৩ ডিসেম্বর ঠাকুরগাঁও পাক হানাদার মুক্ত দিবস

আলোরকন্ঠ রিপোর্টঃ আজ ৩ ডিসেম্বর ঠাকুরগাঁও পাকহানাদার মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এ দিনে শত্রæমুক্ত করে লাল সবুজের পতাকা উড়ায় মুক্তিকামী মানুষ। যুদ্ধকালীন সময়ে এ জেলায় মারা যায় কয়েক হাজার নারী পুরুষ।
স্বাধীনতা যুদ্ধে এদেশিয় রাজাকার আলবদরদের সহায়তায় জেলার বিভিন্ন স্থানে ঘাটি করে পাকসেনারা। সদর উপজেলা সুখানপুকুরী, জাটিভাঙ্গা, জগন্নাথপুরসহ পীরগঞ্জ ও রানীশংকৈল, বালিয়াডাঙ্গী ও হরিপুর উপজেলার বিভিন্নস্থানে পাকসেনারা হামলা চালায় নিরস্ত্র মানুষের উপর। বোমা মেরে উড়িয়ে দেয়া হয় ভুল্লি ব্রীজ। ঘরবাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে চালানো হয় লুটপাট। সাধারন মানুষকে একত্র করে র্নিমমভাবে গুলি চালিয়ে হত্যা করে। দীর্ঘ ৯ মাস যুদ্ধে পৈশাচিক গণহত্যার শিকার হয় জেলার প্রায় ২৫ হাজার মানুষ। এতো দিনেও জেলার বেশিরভাগ গনকবরগুলো আজো চিহ্নিত করা হয়নি। আর যেগুলো চিহ্নিত করা হয়েছে তার মধ্যে হাতে গোনা কয়েকটি গনকবর সংস্কার করা হলেও বাকিগুলো পরে আছে অবহেলা আর অযত্নে।
এ বিষয়ে মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বদরুদ্দোজা জানান, আমাদের অনেক দাবি এখনো পুরন হয়নি আশা করছি সরকার এ বিষয়ে নজর দেবেন।
জেলা প্রশাসক মোঃ আব্দুল আওয়াল জানান, ইতোমধ্যে অনেক গণকবর সংরক্ষন করা হয়েছে বাকিগুলো সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। আর মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের স্বজনদের সহযোগীতা করা হচ্ছে আরো করা হবে বলে জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com