,
সংবাদ শিরোনাম :

ভারত থেকে ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কিনবে সরকার

আলোরকন্ঠ রিপোর্টঃ ক্রমবর্ধমান বিদ্যুতের চাহিদা মেটাতে সরকার ভারত থেকে ৫শ’ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ ক্রয় করবে। ১৫ বছর মেয়াদে এই বিদ্যুৎ সরবরাহ করবে ভারতীয় ন্যাশনাল থারমাল পাওয়ার কোম্পানি (এনটিপিসি) ও পাওয়ার ট্রেডিং কোম্পানির (পিটিসি)।

বুধবার সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কমিটির বৈঠকে এ প্রস্তাবের অনুমোদন দেয়া হয়।

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন কমিটির সদস্য, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সিনিয়র সচিব, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিব এবং ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোস্তাফিজুর রহমান সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, আজকের বৈঠকে বিভাগের উত্থাপিত এ সংক্রান্ত একটি প্রস্তাবের দেয়া হয়েছে। স্বল্প মেয়াদে প্রতি কিলোওয়াট ৪ দশমিক ৭১ টাকা দরে এনটিপিসির কাছ থেকে ৩শ’ মেগাওয়াট, ৪ দশমিক ৮৬ টাকা দরে পিটিসির কাছ থেকে ২শ’ মেগাওয়াট এবং দীর্ঘ মেয়াদে প্রতি কিলোওয়াট ৬ দশমিক ৪৮ টাকা দরে ২শ’ মেগাওয়াট ও ৬ দশমিক ৯৪ টাকা ধরে পিটিসির কাছ থেকে ২শ’ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেনা হবে।

তিনি আরও বলেন, এছাড়াও ডিএপি ফার্টিলাইজার কোম্পানির জন্য ৯৪ কোটি টাকায় তিনটি লটে দুটি কোম্পানিকে ৩০ হাজার মেট্রিক ফসফরিক এসিড আমদানির অনুমোদন দিয়েছে। কমিটি ৩ হাজার ১০৫ কোটি টাকায় ঢাকা ওয়াসার ডিজাইন বিল্ড অপারেট (ডিবিও) ওয়াটার পাইপলাইনের ইনট্যাংক মেইনটেন্স, এবং গন্ধবপুরের ৫ এমএলডি ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্টের ঠিকাদারি নিয়োগ দেয়ার প্রস্তাব অনুমোদন পেয়েছে।

২৭ কোটি টাকায় ঢাকা ওয়াসার ওয়েল্ড ফিল্ড নির্মাণ, ৯৬ কোটি ৭৯ লাখ টাকায় বিআরটি গাজীপুর-এয়ারপোর্ট প্রকল্পের ভেরিয়েশন, ১৯৭ কোটি ৯৭ লাখ টাকা ব্যয়ে যশোর-খুলনা মহাসড়কের পলাশবাড়ি হতে রাজঘাট পর্যন্ত উন্নীতকরণের কাজ পেয়েছে তাহের ব্রাদার্স ও মাহবুব ব্রাদার্স।

২২১ কোটি টাকায় গোপালগঞ্জ জোনের গুরুত্বপূর্ণ আঞ্চলিক মহাসড়কের মান উন্নয়ন ও প্রশস্তকরণের কাজ পেয়েছে মীর হাবিবুল আলম ও শামীম এন্টার প্রাইজ। ২৪০ কোটি ৯০ লাখ টাকা ব্যয়ে আখাউড়া-আগরতলা রেললাইনের বাংলাদেশ অংশের পেয়েছে টেক্সম্যাকো।

রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের চিনকি-আস্তানা-চট্টগ্রাম সেকশনের ১১টি স্টেশনের সিগন্যাল ব্যবস্থার প্রতিস্থাপন ও আধুনিকীকরণের ভেরিয়েশন প্রস্তার অনুমোদন পেয়েছে। ৪ কোটি ১২ লাখ টাকা ব্যয়ে ৩৩ দশমিক ৩৭ শতাশ আগেই হয়েছে। এতে মোট ব্যয় হবে ১৫ কোটি ৯৭ লাখ টাকা।

অ্যাপ্রোচ রেলপথসহ দ্বিতীয় ভৈরব ও দ্বিতীয় তিতাস রেলসেতু নির্মাণে ৫৯৩ কোটি ৯৮ লাখ টাকার ভেরিয়েশন প্রস্তাব অনুমোদন পেয়েছে। ৫ কোটি ৮৫ লাখ টাকায় কাঞ্চন ব্রিজের কাছ থেকে কুর্মিটোলা অ্যাভিয়েশন ডিপো (কেএডি) ইনক্লুডিং পাম্পিং ফ্যাসিলিটিজ প্রকল্প পরামর্শক হিসেবে নিয়োগ পেয়েছে ভারত ও জার্মানের দুটি প্রতিষ্ঠান।

সালদা নর্থ-১ অনুসন্ধান কূপ খনন কাজে অতিরিক্ত সরঞ্জামের বহুবিধ ব্যবহারে ১৯ লাখ ৮০ হাজার ও ৮৫ লাখ ৬৪ হাজার টাকায় দুটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নিয়োগের প্রস্তাব অনুমোদন পেয়েছে।

২২ কোটি ২৩ লাখ টাকায় বিদ্যুৎ ও জ্বালানির দ্রুত সরবরাহ বৃদ্ধির লক্ষ্যে মাঠ পর্যায়ে সাইসমিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য ডাটা অ্যাকুইজিশন সিস্টেম, সফটওয়্যার, হার্ডওয়্যার ও এক্সেসরিজ সরবরাহের কাজ পেয়েছে সারসেল এসইএস।

পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের কনডাক্টর এবং সাবমেরিন-আন্ডারগ্রাউন্ড ৩৫১৯৬ কিলোমিটার তার সরবরাহের কাজ পেয়েছে দেশীয় বিআরবি ক্যাবলস, এমএম কর্পোরেশন এবং চীনের গোয়াংজু ক্যাবল কোম্পানি। এতে ব্যয় হবে ১৮৮ কোটি ১৩ লাখ টাকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com