,
সংবাদ শিরোনাম :
» « ঠাকুরগাঁওয়ে এবারও শ্রেস্ট ফাড়াবাড়ি দূর্গা মন্ডপ বলে মনে করছেন ভক্তরা» « জাতীয় ঐক্য গঠন করা হয়েছে দেশের গনতন্ত্রকে পুনরুদ্ধার করার জন্য -মির্জা ফখরুল» « বিশ্বকাপ ট্রফি এখন ঢাকায়» « নারীদেরকে অর্থনৈতিক কর্মকান্ডে যুক্ত হয়ে দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে- জেলা প্রশাসক ড. কে এম কামরুজ্জামান» « বালিয়াডাঙ্গীতে ভ্রাম্যমাণ থেরাপী সেবা ক্যাম্পের উদ্বোধন» « বাঁশগাড়া সরকারি প্রাইমারী স্কুলে অভিভাবক সদস্য নির্বাচন অনুষ্ঠীত» « সাংবাদিকদের সাথে রংপুর ডিআইজি’র মতবিনিময়» « ঠাকুরগাঁও বিএডিসি শ্রমিকদের বিক্ষোভ ও স্বারকলিপি» « মনিরকে ধরিয়ে দিতে পুরস্কার ঘোষণা» « ইতা‌লি‌তে শুরু হ‌চ্ছে দি রাইজিং স্টার

বিপদে পড়ে ওবায়দুল কাদের দৌড়াদৌড়ি করছেন : মোশাররফ

আলোরকন্ঠ রিপোর্টঃ বিপদে পড়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের দৌড়াদৌড়ি করছেন বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তারা বিপদে আছেন বুঝতে পারছেন, কীভাবে দৌড়াদৌড়ি করতেছেন যে অনেকের বাড়ি পর্যন্ত গিয়ে ঘুরছেন।’

রোববার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী নাগরিক দল আয়োজিত এক প্রতিবাদী নাগরিক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে এ সভার আয়োজন করা হয়।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে উদ্দেশ্য করে মোশাররফ বলেন, ‘টেলিফোন করেন আমাদের মহাসচিব বলতে বাধ্য হবেন- আগামী নির্বাচন নির্দলীয় সরকারের অধীনে হতে হবে, সংসদ ভেঙে দিতে হবে। সামরিক বাহিনীকে নির্বাচনের সময় আনতে হবে। এটা তিনি টেলিফোনেও বলবেন। আবার যদি মহাসচিবের সঙ্গে দেখা করেন সেখানেও তিনি একই কথা বলবেন।’

তিনি বলেন, ‘বাড়িতেও যদি আসেন তাহলে আমাদের মহাসচিবের এর বাইরে বলার কিছু নেই।’

আগামী নির্বাচন ও খালেদা জিয়ার মুক্তি একই সূত্রে গাঁথা মন্তব্য করে মোশাররফ বলেন, ‘অন্যায়ভাবে বেগম জিয়াকে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। হাইকোর্ট জামিন দিয়েছেন তারপরও জামিন দেয়া হচ্ছে না। উদ্দেশ্য গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে তিনি নেতৃত্ব দিচ্ছেন। তাকে (খালেদা) ছাড়া কোনো নির্বাচন জনগণ মেনে নেবে না। ৫ জানুয়ারি গণতন্ত্রকে হত্যা করা হয়েছে। কোনো নির্বাচন হয়নি।’

তিনি বলেন, ‘এই অবৈধ সরকার আন্তর্জাতিকভাবে স্বৈরাচারী স্বীকৃতি পেয়েছে। রাষ্ট্রের মূল স্তম্ভগুলোকে ধ্বংস করে দিয়েছে তারা। কোনো ধরনের জবাবদিহিতা নেই তাদের। প্রশাসন সম্পূর্ণভাবে দলীয়করণ করা হয়েছে। এক লাখ ৪৪ হাজার টন কয়লা চুরি হয়ে গেছে। কেন হচ্ছে যেহেতু স্বৈরাচারী ফ্যাসিস্ট সরকার, কোনো দায়বদ্ধতা নেই। জনগণও বিশ্বাস করে না এদেরকে।’

মোশাররফ বলেন, ‘এদেশের সকল মানুষ অংশগ্রহণমূলক ভোট চায়। ৫ জানুয়ারিসহ এই সরকারের আমলে কোনো নির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি। জনগণের প্রত্যাশা পূরণ হয়নি। সুষ্ঠু নির্বাচনকে সরকার ভয় পায় বলেই বেগম জিয়া এখনও বন্দী।’

সিটি নির্বাচন প্রসঙ্গে বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘গাজীপুর ও খুলনার মতো তিন সিটিতে একই মডেল প্রস্তুত রাখা হয়েছে। সেখানে এমনভাবে গ্রেফতার আতঙ্ক সৃষ্টি করেছে সাধারণ ভোটাররা পালিয়ে যেতে বাধ্য হচ্ছে। কারণ সেখানে তথাকথিত শেখ হাসিনা মডেলের নির্বাচন করতে চায় তারা।’

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী নাগরিক দলের সভাপতি সৈয়দ মো. ওমর ফারুক পীর সাহেবের সভাপতিত্বে সভায় বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মেহেদী হাসান রুমি, মশিউর রহমান, নির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট নিপুণ রায় চৌধুরী, জিনাফ সভাপতি লায় মিয়া মোহাম্মাদ আনোয়ার, দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলনের সভাপতি কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন প্রমুখ বক্তৃতা করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com